বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪৩ পূর্বাহ্ন
Title :
স্বাগতিক ওমানকে ২৬ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপে টিকে থাকল বাংলাদেশ সাইফ লজিস্টিকসের সঙ্গে কন্টেইনার কোম্পানী অব বাংলাদেশের চুক্তি সম্পন্ন সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধের ডাক ‘চিরঞ্জীব মুজিব’পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের তিনটি টিজার উদ্বোধন করেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী আদালতের রায়ে ১২ বছর সাত মাস পর নিজের পদ ফিরে পেলেন অধ্যক্ষ তোফাজ্জল হোসেন আখন্দ আজ থেকে জাতীয়ভাবে পালন হবে ‘শেখ রাসেল দিবস’ রোববার বাগমারায় ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পালিত হয়েছে ‘শেখ রাসেল দিবস’ বীর মুক্তিযোদ্ধা সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের হত্যাকান্ডের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন শাকিব খান অবশেষে সেই গৃহবধূ ও তার স্বামী-সন্তানের সঙ্গে সময় কাটান আজ শুরু হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর

নির্বাচন সামনে,তাই সংগঠনকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে হবে-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৫৪ Time View

নিউজ এবিসি প্রতিবেদন : আগামী নির্বাচন সামনে রেখে দলকে তৃণমূল পর্যায় থেকে আরও শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি নির্দেশ দিয়ে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নির্বাচন আসছে। কাজেই দলকে আরও শক্তিশালী করে তোলার বিষয়ে আমাদের অধিক মনোযোগী হতে হবে। যে যা বলে বলুক, আমাদের নিজেদের আত্মবিশ্বাস আছে এবং আমরা সেই আত্মবিশ্বাস নিয়েই চলি, দেশসেবা করি। আর আওয়ামী লীগ সরকারে আছে বলেই দেশের উন্নতি হচ্ছে। আওয়ামী লীগ সরকারে আছে বলেই এই করোনা মোকাবেলা সম্ভব হয়েছে। আর আওয়ামী লীগ আছে বলেই মানুষ অন্তত সেবা পাচ্ছে, জীবন মানের উন্নয়ন ঘটছে।

বৃহস্পতিবার তাঁর সরকারী বাসভবন গণভবনে প্রায় এক বছর পর অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সূচনা বক্তব্যে রাখতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। কিছু জঘন্য চরিত্রের মানুষ মুজিববর্ষ উপলক্ষে আশ্রায়ণ-২ প্রকল্পের অধীনে গৃহহীন-ঠিকানাহীন মানুষকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেয়া ঘর হাতুড়ি-শাবল দিয়ে ভেঙ্গে মিডিয়ায় প্রচার করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা ঘর ভেঙ্গেছে তাদের নামের তালিকাসহ তদন্ত প্রতিবেদন আমার হাতে রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গণভবনে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ অর্ধ শতাধিক নেতা উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর সূচনা বক্তব্যের পর শোক প্রস্তাব উত্থাপন করেন দলের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া। এরপর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকরা সাংগঠনিক রিপোর্ট উপস্থাপনসহ দলকে তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে সাংগঠনিক সফরসহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী ক্ষোভ প্রকাশ করে সূচনা বক্তব্যে বলেন, সব থেকে দুর্ভাগ্য হলো, আমি যখন সিদ্ধান্ত নিলাম প্রত্যেকটা গৃহহীন মানুষকে আমরা ঘর করে দিব। আমাদের দেশের কিছু মানুষ এত জঘন্য চরিত্রের, আমি কয়েকটা জায়গায় হঠাৎ দেখলাম যে ঘর ভেঙ্গে পড়ছে! কোন জায়গায় ভাঙ্গা ছবি ইত্যাদি দেখার পর পুরো সার্ভে করালাম কোথায় কি হচ্ছে। সেখানে আমরা প্রায় দেড় লাখের মতো ঘর তৈরি করে দিয়েছি।

আওয়ামী লীগ সভাপতি এ প্রসঙ্গে আরও বলেন, তিন শ’টা ঘর (ভেঙ্গেছে)- বিভিন্ন এলাকায় কিছু মানুষ নিজে থেকে হাতুড়ি, শাবল দিয়ে সেগুলো ভেঙ্গে ভেঙ্গে তারপর মিডিয়ায় ছবি তুলে দিচ্ছে। তাদের নাম ধামগুলো একদম এনকোয়ারি (তদন্ত) করে সব বের করা হয়ে গেছে।

ঘর ভেঙ্গে পড়ার পেছনের কারণ মিডিয়া অনুসদ্ধান করেনি অভিযোগ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মিডিয়া এগুলো ধারণ করে প্রচার করে, তারা কিন্তু এটা কিভাবে হলো সেটা কিন্তু সেটা খতিয়ে দেখে না। তদন্তে ৯টি জায়গায় দুর্নীতি পাওয়া গেছে জানিয়ে তিনি বলেন, কয়েকটা জায়গায় গেছে, যেমন এক জায়গায় ৬শ’ ঘর, সেখানে হয়ত ৩/৪টা ঘর, ওই যে প্রবল বৃষ্টি হলো, এ জন্য মাটি ধসে কয়েকটা ঘর নষ্ট হয়েছে। মাত্র ৯টা জায়গায় আমরা পেয়েছিলাম সেখানে কিছুটা দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে, মাত্র ৯টা জায়গায়।

আশ্রায়ণ-২ প্রকল্পের অধীনে ঘর নির্মাণে সবাই আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছে জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, ‘আমি দেখেছি যে প্রত্যেকে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করছে। তারা মনে করেছে যাদের অফিসারদের ওপর দায়িত্ব দিয়েছিলাম, আমাদের ডিসি-ইউএনও সমস্ত কর্মচারীরা ছিল, তারা কিন্তু অনেকে নিজেরা এগিয়ে এসেছে এই ঘরগুলো তৈরিতে সহযোগিতা করার জন্য।

তিনি বলেন, যারা ইট তৈরি করে তারাও এগিয়ে এসেছে, অল্প পয়সায় তারা ইট দিয়েছে। এভাবে সবাই, সবার সহযোগিতা, আন্তরিকতাটাই বেশি। কিন্তু এর মধ্যে দুষ্টু বুদ্ধির কিছু, এটাই হচ্ছে সবচেয়ে কষ্টকর। যখন এটা গরিবের ঘর সেখানে হাত দেয় কিভাবে? নেতাকর্মীসহ সংশ্লিষ্টদের সতর্ক থাকার নির্দেশনা দিয়ে তিনি বলেন, যাই হোক আমরা সেগুলো মোকাবেলা করেছি, তবে আমাদের নেতাকর্মীদের এ ব্যাপারে আরও সতর্ক থাকা দরকার। এ ধরনের ঘটনা দেখা বা জানার পর স্থানীয় যুবলীগ ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ সরেজমিনে গিয়ে নিজেরাও তদারকি করে ছবি পাঠাচ্ছেন এবং সেভাবে কাজ হচ্ছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানোয় দলের নেতাকর্মীদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, এবারের করোনাভাইরাসের সময় আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা যেভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে, সেভাবে আর কোন রাজনৈতিক দলকে মানুষের পাশে দাঁড়াতে তিনি দেখেননি।

শেখ হাসিনা বলেন, মূলত কেউ দাঁড়ায়নি। এই ব্যাপারে অন্য দলগুলোর কোন আগ্রহ ছিল না। তাদের কাজই ছিল প্রতিদিন টেলিভিশনে বক্তৃতা বা বিবৃতি দেয়া এবং আওয়ামী লীগের একটু সমালোচনা করা। তাদের যেন একটাই কাজ আওয়ামী লীগকে দোষারোপ করতেই হবে। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের সময় সরকারের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানই খুব আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেছে। তবে, কখনও সরকারের একার পক্ষে এই ধরনের পরিস্থিতি সামাল দেয়া সম্ভব ছিল না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের পক্ষে সম্ভব হয়েছে একটাই কারণে যে, আমাদের একটা শক্তিশালী সংগঠন তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত আছে। আর সেটা আছে বলেই আমরা এটা মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছি। যেটা আমার বিশ্বাস। জানি একথা কেউ হয়ত বলবেও না লিখবেও না, কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে এককভাবে শুধু সরকারী লোক দিয়ে সবকিছু করা সম্ভব হয় না। তারাও করেছে খুব আন্তরিকতার সঙ্গে। আমাদের প্রশাসনে যে যেখানে ছিল বা পুলিশ বাহিনী, সশস্ত্র বাহিনী, বিডিআর, আনসার প্রত্যেকে এবং বিশেষ করে স্বাস্থ্যকর্মীরা।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রথম দিকে একটু ভীতি ছিল, কিন্তু সরকারের প্রণোদনা এবং উৎসাহে তারা কাজ করতে পেরেছে। হাজার হাজার ডাক্তার এবং নার্স আমরা নিয়োগ দিয়ে চেষ্টা করেছি করোনা মোকাবেলা করার জন্য। আবার ভ্যাকসিন কেনার ব্যাপারে আমরা সবার আগে উদ্যোগ নিয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের বিপদ হয়ে গিয়েছিল ভারতে এত ব্যাপকহারে করোনা দেখা দিল যে, চুক্তি থাকা সত্তে¡ও তারা ভ্যাকসিন সাপ্লাই দিতে পারছিল না। তারপরেও আমরা পৃথিবীর যেখান থেকে পেরেছি ভ্যাকসিন সংগ্রহ করেছি এবং এখন আর সমস্যা হবে না। আমরা নিয়মিত পাব এবং আমাদের দেশের মানুষকে আমরা দিতে পারব। কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা মানুষের কোন কাজের সুযোগ ছিল না, ঘরে বন্দী, খাবারের অভাব। সেই সময় আমাদের নেতাকর্মীরা প্রত্যেকে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেছে।

এ সময় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা করোনায় দলের বহু নেতাকর্মীর মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, কত মানুষকে যে আমরা হারালাম। এমন কোন দিন নেই যে, মৃত্যু সংবাদ না আসত। আজকেও (বৃহস্পতিবার) কিছুক্ষণ আগে খবর পেয়েছি ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফির স্ত্রী মারা গেছেন। তিনি তার রুহের মাগফিরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারে আছে বলেই দেশের উন্নতি হচ্ছে। আওয়ামী লীগ সরকারে আছে বলেই এই করোনা মোকাবেলা সম্ভব হয়েছে। আর আওয়ামী লীগ আছে বলেই মানুষ অন্তত সেবা পাচ্ছে। কারণ অতীত অভিজ্ঞতা আছে এবং যারা আমাদের সমালোচনা করেন তাদের শুধু এতটুকু বলব যে, অতীতে আমাদের দেশে কি অবস্থা ছিল? ’৭৫-এর পর থেকে ‘৯৬ পর্যন্ত কি অবস্থাটা ছিল, সেটা যেন তারা একটু উপলব্ধি করে। তবে, কিছু ভাড়াটে লোক রয়েছে সারাক্ষণ মাইক লাগিয়ে বলতেই থাকবে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, যে যাই বলে বলুক আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে এবং আমরা সেই আত্মবিশ্বাস নিয়েই চলি। ২০০৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে আমরা ঘোষণা দিয়েছিলাম ২০২১ সালে বাংলাদেশকে আমরা এই পর্যায়ে নিয়ে আসব। সেটা আমরা করতে পেরেছি বলেই আজকে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ। তিনি বলেন, জাতিসংঘের যে কর্মসূচী সাসটেনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজি), সেটাও যেমন আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি, সেই সঙ্গে আমাদের নিজেদের কর্মসূচী বাংলাদেশকে ঘিরে অর্থাৎ ২০৪১ সাল নাগাদ কেমন বাংলাদেশ আমরা দেখতে চাই, সেই পরিকল্পনাও আমরা বাস্তবায়নের কাজ শুরু করেছি। সেই সঙ্গে ডেল্টা প্ল্যান করেছি। অর্থাৎ দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা এবং আশু করণীয় নির্ধারণ করে সেভাবে আমরা কাজ করেছি। যার সুফল এখন দেশের মানুষ পাচ্ছে।

সভার শুরুতে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের উদ্দেশ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা আমাদের কার্যনির্বাহী সংসদের মিটিং সাধারণত চার মাস পরপরই করতাম বা দুই মাস পরপরই করতাম। ওই দুই মাস থেকে তিন মাসের মধ্যে সব সময় বসতাম, এটা নিয়মিত করতে পারতাম। কিন্তু এই করোনাভাইরাসের কারণে আমরা সময়মতো সভাটা করতে পারিনি এবং এটা করা বোধহয় সমীচীনও হতো না। এখন পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এবং টিকাদানের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমাদের মনে রাখতে হবে যে আমাদের নির্বাচনও সামনে, তাই সংগঠনটাকেও আমাদের শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © newsabcbd  
Design & Developed by: A TO Z IT HOST
minhaz