বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন
Title :
স্বাগতিক ওমানকে ২৬ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপে টিকে থাকল বাংলাদেশ সাইফ লজিস্টিকসের সঙ্গে কন্টেইনার কোম্পানী অব বাংলাদেশের চুক্তি সম্পন্ন সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধের ডাক ‘চিরঞ্জীব মুজিব’পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের তিনটি টিজার উদ্বোধন করেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী আদালতের রায়ে ১২ বছর সাত মাস পর নিজের পদ ফিরে পেলেন অধ্যক্ষ তোফাজ্জল হোসেন আখন্দ আজ থেকে জাতীয়ভাবে পালন হবে ‘শেখ রাসেল দিবস’ রোববার বাগমারায় ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পালিত হয়েছে ‘শেখ রাসেল দিবস’ বীর মুক্তিযোদ্ধা সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের হত্যাকান্ডের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন শাকিব খান অবশেষে সেই গৃহবধূ ও তার স্বামী-সন্তানের সঙ্গে সময় কাটান আজ শুরু হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর

প্রদর্শক পদ থেকে প্রভাষক পদে পদোন্নতি দেওয়া হোক

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১১ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩৭ Time View

নিউজ এবিসি :   সরকারি কলেজে মাস্টার্স ডিগ্রিধারী প্রদর্শকরা পদোন্নতি পেয়ে প্রভাষক ও সহকারী অধ্যাপক হচ্ছেন। অন্যদিকে মাস্টার্স ডিগ্রিধারী বেসরকারি প্রদর্শকরা জীবনভর প্রদর্শকই থেকে যান অর্থাৎ কোন পদোন্নতি নেই। নীতিমালার ভাষায় যাকে বলে ব্লক পোষ্ট। একই দেশের একই শিক্ষা বিভাগে কত রকম নিয়ম! এমপিওভুক্ত কলেজের মাস্টার্স ডিগ্রিধারী প্রদর্শকেরা দিন কাটান হতাশায় অসম্মানে। এ বিষয়ে সরকার তথা শিক্ষা প্রশাসন যেন দৃষ্টিহীন! ১৯৮১ খ্রিষ্টাব্দের বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস রিক্রুটমেন্ট রুলস অনুসারে প্রদর্শক পদটি একটি পদোন্নতি যোগ্য পদ। এ পদ থেকে পদোন্নতি পেয়ে প্রদর্শকরা প্রভাষক পদে পদোন্নতি যোগ্য হবেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাসনামলে ১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দে কলেজ পর্যায়ের দুটো পদ শরীরচর্চা শিক্ষক ও প্রদর্শক এবং সরকারি হাইস্কুলের সহকারী শিক্ষকের পদকে দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড পদ মর্যাদা দেওয়া হয়। দীর্ঘ অপেক্ষার পর সরকারি হাইস্কুলের সহকারী শিক্ষকরা নন গেজেটেড কর্মকর্তা হিসেবে পদোন্নতি পেয়েছেন। কিন্তু শরীরচর্চা শিক্ষক ও প্রদর্শকদের অদ্যাবধি কোনো পদোন্নতি হয়নি। জাতির পিতার এ মহতি উদ্যোগ তার নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর আর আলোর মুখ দেখেনি। ১৯৯১ খ্রিষ্টাব্দের নিয়োগ বিধিমালায় প্রদর্শক পদের কাম্য শিক্ষাগত যোগ্যতা (সংশ্লিষ্ট বিষয়সহ দ্বিতীয় শ্রেণির স্নাতক ডিগ্রি অথবা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি) বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তার শিক্ষাগত যোগ্যতার সমমান। অথচ নির্দিষ্ট সময় পর বর্তমান নীতিমালা অনুযায়ী উচ্চতর গ্রেডপ্রাপ্ত প্রদর্শক আর নবীন প্রভাষকের বেতন স্কেল একই। প্রদর্শকদের প্রভাষক পদে পদোন্নতি দিলে সরকারের কোনো বাড়তি ব্যয় লাগবেনা; বরং পদোন্নতিপ্রাপ্ত প্রদর্শক মানসিক প্রশান্তি ও সামাজিক মর্যদা নিয়ে কাজ করতে পারবেন। ভালো একাডেমিক ফল, পেশাগত প্রশিক্ষণ, শিক্ষায় উচ্চতর ডিগ্রি এবং গবেষণামূলক উচ্চতর ডিগ্রিকে বিশ্বের কোনো দেশে অসম্মান করা হয় না। উচ্চতর ডিগ্রিধারীদের এভাবে অবমূল্যায়ন করা চরম অপমানজনক ও হেয় পতিপন্ন করা বন্ধ হোক । প্রদর্শক পদ থেকে প্রভাষক পদে পদোন্নতি দেওয়া হোক। লেখক: রবিউল করিম, প্রদর্শক (জীব বিজ্ঞান) সমুজ আলী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, সুনামগঞ্জ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © newsabcbd  
Design & Developed by: A TO Z IT HOST
minhaz